ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাট মেরামতের ব্যয় নিয়ে তোলপাড়

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের ডাউনিং স্ট্রিটের ফ্ল্যাটের মেরামতের ব্যয় নিয়ে প্রশ্ন ওঠেছে। এ নিয়ে লেবার পার্টি তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। তাদের অভিযোগ, রক্ষণশীল দলের জনৈক দাতা এই অর্থ প্রদান করেছেন। এ ব্যাপারে রক্ষণশীল দল একটি নির্বাচনী কমিশনের তদন্তের সম্মুখীন।

অপরদিকে প্রধানমন্ত্রীর স্ট্যান্ডার্ড এডভাইজার লর্ড গিয়েট এটা যাচাই করে দেখছেন যে, মিঃ বরিস জনসনের কোন ডোনেশন বা দানের ঘোষণার প্রয়োজন আছে কি-না। এ ব্যাপারে লেবার পার্টির বক্তব্য হচ্ছে,লর্ড গিয়েট সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ ব্যক্তি নন, কারণ প্রধানমন্ত্রী তার প্রাপ্ত বিষয় অস্বীকার করতে পারেন।
ম্যানচেষ্টারে ভাষণ দানকালে লেবার পার্টির নেতা কেইর স্টার্মার বলেন, এমন একজন উপদেষ্টা রাখার ধারণা, যিনি শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রী বললেই তদন্ত করতে পারেন, তা এটাই প্রদর্শন করে যে, সিস্টেম কতো দুর্বল। তিনিই বিতর্কের বিষয়ে একটি উপযুক্ত নিরপেক্ষ কমিশনের তদন্তের আহ্বান জানান।
উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রীর ডাউনিং স্ট্রিটের ফ্ল্যাটটির মেরামত কার্যের জন্য বরিস জনসন বার্ষিক ৩০ হাজার পাউন্ড সরকারি বরাদ্দ গ্রহণ করেন। কিন্তু মিডিয়ায় এই মর্মে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে যে, সর্বশেষ মেরামত কার্যের ব্যয় ২ লাখ পাউন্ডের কাছাকাছি হবে।
মিঃ জনসন বলেছেন, তিনি নিজে এ অর্থ পরিশোধ করেছেন। কিন্তু যখন তিনি প্রথম বিল পান তখন কীভাবে তা পরিশোধ করা হয়, তা স্পষ্ট করেননি কিংবা বলেননি তিনি এই অর্থ ঋণ নিয়েছিলেন এবং পরে পরিশোধ করেন। সাধারণত: এমপিদের কোন দান কিংবা গ্রহণের ক্ষেত্রে ২৮ দিনের মধ্যে তা নিবন্ধন করতে হয়। এদিকে সরকার জোর দিয়ে বলছে, প্রধানমন্ত্রী যথাযথ আচরণ বিধি ও নির্বাচনী আইন অনুসারেই কাজ করেছেন। তারা বলেছেন, লর্ড গিয়েট মেরামত কার্য সম্পর্কিত বিষয়টি দেখবেন এবং প্রধানমন্ত্রীকে পরামর্শ দেবেন স্বার্থ সংক্রান্ত অধিকতর কোন নিবন্ধনের ব্যাপারে, যদি এর প্রয়োজন হয়।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close