কভিড চুক্তির ব্যাপারে ব্রিটিশ সরকারের স্বচ্ছতা নিয়ে এমপিদের মামলা

নতুন পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, লকডাউন শুরুর পর থেকে সরকার প্রাইভেট চুক্তির ক্ষেত্রে ৩ বিলিয়ন পাউন্ড ব্যয়ের জবাবদিহিতা প্রদানে ব্যর্থ হয়েছে। মহামারি সংক্রান্ত চুক্তির ক্ষেত্রে ব্যয়ের ব্যাপারে বিস্তারিত হিসাব প্রকাশে ব্যর্থতার দরুন একটি আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। সম্প্রতি তিনটি দলের এমপিবৃন্দ ও একটি অলাভজনক সংস্থা ‘গুড ল’ প্রোজেক্ট সরকারের বিরুদ্ধে আইন ও নিজের নির্দেশনা লংঘনের ব্যাপারে একটি জুডিশিয়াল রিভিউ দায়ের করেছেন। তাদের মতে, করোনাভাইরাস সংক্রান্ত ক্রয়ের ব্যাপারে উদ্বেগ ক্রমশ: বাড়ছে। আইনজীবিগণ মন্ত্রী পরিষদকে কামিংস-এর মিত্র পিআর ফার্মের প্রতি পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ এনেছেন।

গ্রীণ পার্টির এমপি ক্যারোলিন লুকাস, লেবার পার্টির ডেব্বি আব্রাহামস এবং লিবারেল ডেমোক্র্যাট এমপি লায়লা মোরান বলেন যে, এপ্রিল থেকে এপর্যন্ত ডিপার্টমেন্ট কমপক্ষে ১১ বিলিয়ন পাউন্ডের অন্তর্নিহিত করোনা ভাইরাস সংশ্লিষ্ট চুক্তি করলেও, উপাত্ত বিশ্লেষক ‘টাসেল’-এর নতুন বিশ্লেষনে দেখা যাচ্ছে যে, ৩ বিলিয়ন পাউন্ডেরও বেশী চুক্তির বিষয় জনসমক্ষে প্রকাশ করা হয়নি। ডিএইচএসসি বলেছে, সরকারের পক্ষ থেকে করা সকল চুক্তির ক্ষেত্রে যথাযথ শ্রম দেয়া হয়েছে। জুডিশিয়াল রিভিউয়ের আইনী কার্যপ্রণালীর জবাব দিতে সরকারের হাতে ২১ দিন আছে।
‘গুড ল’ প্রোজেক্টে’ এর পরিচালক জলিয়ন মেঘাম বলেন, এই মহামারির সময় সরকারের ক্রয় সংক্রান্ত অনুশীলনের বিষয়ে আমরা যা শুনছি, এতে উদ্বেগের যথার্থ কারণ রয়েছে। এবং আমি এই মর্মে প্রমাণ পেয়েছি যে, সরকার মাঝে মাঝে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতার সুবাদে একই সামগ্রী ক্রয়ে অধিক অর্থ পরিশোধ করেছে। আমরা জানিনা আর কি উদঘাটিত হবে, কারণ সরকার পরিকল্পিতভাবে জনগনকে অন্ধকারে রেখে দিচ্ছে। লুকাস বলেন, আদালতসমূহের মাধ্যমে স্বচ্ছতা নির্ণয়ের পন্থাটি ছাড়া আমাদের আর কিছুই করার নেই, যখন জনগনের বিলিয়ন বিলিয়ন পাউন্ড প্রাইভেট কোম্পানীগুলোকে প্রদান করা হয়েছে। এগুলোর কিছু কিছুর সাথে রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা রয়েছে, যদিও এসব কোম্পানীর মেডিকেল সাপ্লাইয়ের ক্ষেত্রে কোন অভিজ্ঞতা নেই। মন্ত্রীবর্গকে ব্যাখ্যা দিতে হবে কেনো ঐসব কোম্পানীকে চুক্তি প্রদান করা হয়।
ইল্লি গেলার্ড বলেন, জনগণের জানা প্রয়োজন, করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে আমাদের চলমান লড়াইয়ে করদাতাদের অর্থ কোথায় ব্যয় করা হয়েছে, যাতে তারা নিশ্চিত হতে পারে, কাদেরকে অর্থ প্রদান করা হয়েছে এবং প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তারা কী সরবরাহ করেছেন। এই আইনী চ্যালেঞ্জের ক্ষেত্রে অর্থ দিচ্ছেন থার্টিএইটডিগ্রি ও গুড ল’ প্রোজেক্ট এবং ডেইটন পিয়ার্স গিøন, জেসন কোপেল কিউসি ও ইলেভেন কেবিডব্লিউ -এর ক্রিস্টোফার নাইটের পরামর্শক্রমে ৩জন এমপি।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close