ব্রিটেনে পেট্রোল ও ডিজেন চালিত কার নিষিদ্ধ হচ্ছে

কার্বন নিঃসরণ হ্রাসের লক্ষ্যে ব্রিটিশ সরকার পেট্রোল ও ডিজেল চালিত কার নিষিদ্ধের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ২০৫০ সালের পূর্বে যুক্তরাজ্যে কার্বন নিঃসরণ শূণ্যের কোটায় নামিয়ে আনার জন্য আগামী সপ্তাহে নতুন টার্গেট ঘোষনার প্রত্যাশা করছেন। ২০৩০ সাল থেকে পেট্রোল ও ডিজেল চালিত কার ও ভ্যান বিক্রি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মূলত: ২০৪০ সালের জন্য করা এই নিষেধাজ্ঞা ২০৫০ সালের টার্গেটে পৌঁছার জন্য গোটা দশক ধরে এটাকে এগিয়ে আনা হয়েছে।

গত ফেব্রুয়ারী মাসে আগামী নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য জাতিসংঘের জলবায়ূ শীর্ষ সম্মেলনের জন্য একটি অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে সরকার নিষেধাজ্ঞাকে ২০৩৫ সালে এগিয়ে আনে। এই ঘটনার সময়, জনসন বলেন যে, ২০২০ সাল হবে উপগ্রহের জন্য জলবায়ূ উদ্যোগ ব্যাখ্যার বছর।
ফেব্রুয়ারী মাসের শেষভাগে পরিবহন মন্ত্রী গ্রান্ট শ্যাপস এই বলে সতর্কবানী উচ্চারণ করেন যে, প্রস্তাবিত নিষেধাজ্ঞা এমনকি ২০৩২ সালেও আরোপিত হতে পারে, যা প্রত্যাশিত সময়ের ৩ বছর আগে। তবে মোটরিং বিশেষজ্ঞরা দাবিকৃত এই নীতির সমালোচনা করেছেন, যারা চান হাইব্রিড মোটরগুলোও নিষিদ্ধ হোক। সোসাইটি অব মোটর ম্যানুফ্যাকচারার্স এন্ড ট্রেডার্স-এর প্রধান নির্বাহী মাইক হাউয়িস বলেন, এটা চরম উদ্বেগজনক যে, সরকার এমন একটি বিতর্কিত ইস্যুর ব্যাপারে ভোক্তা ও শিল্পের জন্য গোলপোস্টগুলো যেনো সরিয়ে নিয়েছেন।
মন্ত্রীরা চাপের মধ্যে আছেন নিষেধাজ্ঞাকে সামনে এগিয়ে আনার জন্য। যদিও এই বলে সতর্কবানী উচ্চারিত হচ্ছে যে, ব্রিটেন গ্রীন ট্রান্সপোর্টের ক্ষেত্রে বিশ্বের তুলনায় পিছিয়ে পড়ার ঝুঁকিতে আছে। একটি পরিবেশগত ল’ ফার্ম ক্লায়েন্টআর্থ বলেছে, যুক্তরাজ্যের রাস্তায় এখনো ৮৫ লাখ ডিজেল চালিত গাড়ি চলাচল করছে, যেগুলো নাইট্রোজেন আক্সাইডের বৈধ সীমার বাইরে চলে গেলে। এছাড়া বিল্ট-আপ এলাকাগুলোতে বিষাক্ত দূষনের ব্যাপারেও উদ্বেগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এক পরিসংখ্যান অনুসারে, যুক্তরাজ্যে বায়ূদূষনের ফলে বছরে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ অকালে প্রাণ হারাচ্ছে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close