নীতিমালা পরিবর্তনের উদ্যোগ

পাচারকৃত ব্যক্তিকে বেআইনীভাবে আটক রাখার কথা স্বীকার করলো হোম অফিস

ব্রিটিশ হোম অফিস তার ইমিগ্রেশন ডিটেনশন পলিসি অর্থাৎ অভিবাসীদের বন্দী রাখার নীতি পুনর্বিবেচনার উদ্যোগ নিচ্ছে। জনৈক পাচারকৃত ভিয়েতনামী ভিকটিমকে একটি নির্বাসন কেন্দ্রে বেআইনীভাবে বন্দী রাখার বিষয়টি স্বীকার করার পর তারা এ পদক্ষেপ নিচ্ছে।
জনৈক মহিলাকে, যাকে ভিয়েতনাম,রাশিয়া ও ফ্রান্সে ৪ বছরের জন্য পতিতাবৃত্তির কাজে বাধ্য করার পর ২০১৬ সালে যুক্তরাজ্যে পাচার করা হয়, গত বছর যুক্তরাজ্যের একটি নির্বাসন কেন্দ্রে আটক করা হয়। ১৮ মাস আগে সরকার কর্তৃক ঐ মহিলাকে একজন ‘আধুনিক দাসত্ববৃত্তি’র শিকার হিসেবে শনাক্তকৃত হওয়া সত্বেও তাকে আটক রাখা হয়।

গত সপ্তাহে হোম অফিস স্বীকার করে যে, তাকে আটক রাখা বেআইনী এবং বলে যে, তারা পাচারের শিকারদের আটকের সাথে সংশ্লিষ্ট একটি নতুন নীতি প্রকাশের প্রক্রিয়ায় রয়েছে — এটা এমন একটি পদক্ষেপ হবে যা অভিবাসীদের সাথে ডিপার্টমেন্টের আচরণে প্রকৃত পরিবর্তন আসবে, যারা যুক্তরাজ্যে শোষিত ও দাসত্বে বন্দী রয়েছে। এটা এমন এক সময়ে হচ্ছে যখন অরক্ষিত লোকজনের বন্দীত্ব নিয়ে উদ্বেগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। উপাত্ত তৈরীকারক প্রকল্প ‘আফটার এক্সপ্লয়টেশন’ কর্তৃক প্রাপ্ত পরিসংখ্যানে দেখা যায়, সম্ভাব্য কিংবা নিশ্চিতভাবে আধুনিক দাসত্বের শিকারদের সংখ্যা গত ২ বছরে দ্বিগুনের চেয়ে বেশী হয়ে দাঁড়ায়। অর্থাৎ ২০১৭ সালে যা ছিলো ৬৩৫, তা ২০১৯ সালের জানুয়ারী ও সেপ্টেম্বরের মধ্যে বেড়ে দাঁড়ায় ১২৯৮।
পাচারকৃত উক্ত মহিলাকে, যাকে প্রতিনিধিত্ব করছে ডানকান লিউইস সলিসিটর্স, ২০১৮ সালে গ্রেফতার করা হয়। একটি গাঁজার খামারে কর্মরত ছিলো সে। সেখান থেকে তাকে আটক করা হয়। মহিলাটি পাচারকৃত এ কথাটি প্রকাশিত হওয়ার পর তাকে যুক্তরাজ্যের ভিকটিম শনাক্তকারী ফ্রেম ওয়ার্ক ‘ন্যাশনাল রেফারেল মেকানিজম’ (এনআরএম)— এ পাঠায় স্হানীয় কর্তৃপক্ষ।
২০১৮ সালের এপ্রিলে সে একটি যৌক্তিক কারন সম্বলিত ইতিবাচক সিদ্ধান্ত লাভ করে — যার অর্থ হচ্ছে সে ছিলো অফিশিয়েলী স্বীকৃত একজন আধুনিক দাসত্বের শিকার ব্যক্তি। সে পুনরায় পাচার হয় এবং ৪ মাস পর সে অপর একটি অভিযানে গ্রেফতার হয়। সে গাঁজা উৎপাদনে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে এবং তাকে ঐ বছরের ডিসেম্বর মাসে ২৮ মাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়।
২০১৯ সালে তার দন্ডাদেশ সম্পূর্ণ হলে, সে ইমিগ্রেশন আইনে আটক হয়। যদিও এটা সত্য যে, আগের বছর ঐ মহিলা আধুনিক দাসত্ব বৃত্তির শিকার ব্যক্তি হিসেবে শনাক্তকৃত হয়। হোম অফিসে তার পিটিএসডি এবং বিষন্নতা রোগ নির্নয় করে একটি মেডিকেল রিপোর্ট দাখিল করা হয়। কিন্তু সে বন্দীই থেকে যায়।
ডানকান লিউইস ঐ মহিলার বেআইনী আটক ও পাচারের শিকারদের বন্দী রাখা সংক্রান্ত হোম অফিসের নীতি উভয় বিষয় চ্যালেন্জপূর্বক বিচারিক পুনর্বিবেচনার কার্য়ক্রম গ্রহন করে। এটা মহিলাকে পরের মাসে ২৪ দিনের আটক অবস্হা থেকে মুক্তির পথে নিয়ে যায়।
ডিপার্টমেন্ট স্বীকার করে যে, ঐ মহিলাকে পুরো সময়ব্যাপী বেআইনীভাবে আটক রাখা হয়েছিলো, যার জন্য সে ক্ষতিপূরণ পাওয়ার অধিকারী। ডিপার্টমেন্ট আরো বলে যে, এই মামলার আলোকে তারা পাচারের শিকার ব্যক্তিদের আটক রাখার সংক্রান্ত নীতি পুনর্বিবেচনা করছে।
হোম অফিসের জনৈক মুখপাত্র বলেন, এটা বলা সঠিক নয় যে,আমরা এই মামলার কারনেই সরাসরি আধুনিক দাসত্ববৃত্তি থেকে সুরক্ষার বিষয় বিবেচনা করছি, বরং আমরা এক্ষেত্রে আমাদের নীতিমালার প্রতি লক্ষ্য রাখা অব্যাহত রাখবো এবং এই মামলা থেকে উদ্ভূত বিষয়গুলো বিবেচনা করবো। -ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডট কো ডট ইউকে

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close