সড়ক দুর্ঘটনায় গত বছর লন্ডনে ১২৬ জনের প্রাণহানী

২০১৯ সালে নরওয়ের রাজধানী ও সবচেয়ে জনবহুল শহর অসলো’র রাস্তায় কেবল একজন ব্যক্তি মারা গিয়েছিলেন। এর তুলনায় গত বছর লন্ডনের রাস্তায় মারা গিয়েছিলেন ১২৬ জন। ২০১৯ সালে অসলোতে ট্র্যাফিক দুর্ঘটনার ফলে মাত্র একজন ব্যক্তি মারা গেছেন বলে সরকারী পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। স্থানীয় পত্রিকা আফটেনপোস্টেন জানিয়েছে যে ২০১৭ সালে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন ট্র্যাফিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছিল, যখন অসলোয়ের রাস্তায় তিনজন মারা গিয়েছিলেন।

নরওয়েজিয়ান পাবলিক রোড অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের চিত্র দেখাচ্ছে, গত ৫০ বছ‌রে শহরের রাস্তায় মৃত্যুর সংখ্যা মারাত্মকভাবে হ্রাস পেয়েছে, ১৯৭৫ সালে স‌বোর্চ্চ ৪১ জন মারা গিয়েছিল। নরওয়ে ২০১৭ সালে ইউরোপের ট্র্যাফিকের মধ্যে সবচেয়ে কম সংখ্যক মৃত্যুর রেকর্ড করেছে, প্রতি ১০ মিলিয়ন বাসিন্দার মধ্যে ২০ টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে।

‌সে তুলনায়, ডিসেম্বরের প্রথমদিকে লন্ডনের রাস্তায় সড়ক দুর্ঘটনায় ১২৬ জন মারা গিয়েছিলেন, যা ২০১৮ সালের একই সময়ের চেয়ে ২২ জন বৃদ্ধি পেয়েছে। তা সত্ত্বেও, ইউকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ট্র্যাফিক দুর্ঘটনার জন্য অন্যতম নিরাপদ দেশ হিসেবে বিবেচিত, যেখানে প্রতি দশ মিলিয়ন বাসিন্দায় ৩০ জ‌নের কম সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান।

রাস্তাঘাটের সুরক্ষার জন্য ইইউর সবচেয়ে বিপজ্জনক দেশ হ’ল বুলগেরিয়া এবং রোমানিয়া, যেখানে এক মিলিয়ন বাসিন্দায় গড়ে ৯০ জন মারা যায়। ভিশন জিরো নরওয়ের সমস্ত সড়ক সুরক্ষার কাজের ভিত্তি এবং একটি ট্রান্সপোর্ট সিস্টেম প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্য যা ট্র্যাফিকের ফলে কেউ মারা বা গুরুতর আহত হয় না।

নরওয়েজিয়ান রাস্তায় গড় গতি হ্রাস করে এবং বাজারে সুরক্ষা বৈশিষ্ট্যযুক্ত ভারী গাড়ি সংখ্যা বাড়িয়ে দেশটি তার স্বল্প ট্র্যাফিক মৃত্যুর হার অর্জন করেছে। ওসলোতে প্রশাসন ড্রাইভিং জোনের উপর বিশেষ করে শহরের কেন্দ্রের উপর নিষেধাজ্ঞার প্রবর্তন করেছিল এবং নাগরিকদের চারটির পরিবর্তে দুটি চাকায় যাতায়াত করতে উত্সাহিত করার জন্য সু-সংযুক্ত সাইক্লিং লেন স্থাপন শুরু করে। লন্ডনের মেয়র সাদিক খান, ভিশন জিরোর সাথে সামঞ্জস্য রেখে ২০৪১ সালের মধ্যে রাজধানীর গাড়ি-মুক্ত সমস্ত যাত্রার ৮০ শতাংশই গাড়ি পরিবহন করার লক্ষ্য নিয়েছেন।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close