সর্বশেষ জরিপে নিজ অবস্থান দেখে বিচলিত বরিস

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচন সামনে রেখে পরিচালিত জরিপে নিজ অবস্থান দেখে তিনি কিছুটা বিচলিত। করবিনের সঙ্গে ব্যবধান কমে আসা নিয়ে তিনি বিচলিত কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে জনসন বলেন, অবশ্যই, আমরা প্রতিটি ভোটের জন্য লড়াই করছি। আমি মনে করি, এটি দেশের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি সময়।

স্কাই টিভিকে দেয়া এক সাক্ষাত্কারে জনসন বলেন, ব্রিটেনের ব্যবস্থাপনায় আমূল পরিবর্তন আনবে ব্রেক্সিট। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ৬৫০ আসনের ব্রিটিশ সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলে ৩১ জানুয়ারিই ইইউ থেকে যুক্তরাজ্যকে বের করে আনবেন তিনি। জনসন বলেন, ব্রেক্সিট অপরিহার্য। ব্রেক্সিট ছাড়া আপনি সামনে এগোতে পারবেন না।

সাম্প্রতিক মতামত জরিপে দেখা গেছে, লেবার পার্টির নেতা জেরমি করবিনের চেয়ে জনসন এগিয়ে থাকলেও তাদের মধ্যে ব্যবধান অনেক কমেছে। তবে এটাও ঠিক, মতামত জরিপ ২০১৬ সালের গণভোটের ফলাফল কিংবা ২০১৭ সালে মের সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারানো নিয়ে পূর্বাভাস দিতে ব্যর্থ হয়েছিল।

গত শনিবার চারটি মতামত জরিপ প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে, ১৫ পয়েন্ট পেয়ে শীর্ষে রয়েছে জনসনের কনজারভেটিভ পার্টি, আর ৮ পয়েন্ট পেয়েছে লেবার পার্টি। কোনো জরিপেই দেখা যায়নি যে করবিন জয় লাভ করবেন।

উল্লেখ্য, ১২ ডিসেম্বরের নির্বাচন ব্রেক্সিটের ভাগ্য নির্ধারণ করবে এবং ওইদিন বিশ্বের পঞ্চম সর্ববৃহৎ অর্থনীতিটির জনগণ বেছে নেবে জনসনের কনজারভেটিভকে, না হয় বিরোধী লেবার পার্টিকে। নির্দিষ্ট সময়ে ব্রেক্সিট চুক্তি সম্পন্নে ব্যর্থ হওয়ায় জুলাইয়ে পদত্যাগ করেন প্রধানমন্ত্রী টেরিসা মে। তার পদত্যাগের পর প্রধানমন্ত্রী হন বরিস জনসন।

বৃহস্পতিবার লন্ডন সময় সকাল ৭টায় ভোটগ্রহণ শুরু হবে এবং শেষ হবে রাত ১০টায়। ওই সময়ই বুথ ফেরত জরিপ থেকে বোঝা যাবে কে জয় পেতে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী পদে থাকতে এবং অক্টোবরে নিজের করা ব্রেক্সিট চুক্তি অনুমোদন করার জন্য জনসনের ৩২০টির বেশি আসনের দরকার।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close