ফেসমাস্ক আইন কমাতে পারে নেকাববিদ্বেষ

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে আগামী ১৫ জুন থেকে ইংল্যান্ডের গণপরিবহনগুলিতে ফেস মাস্ক ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। তবে, বছরের পর বছর ধরে মুসলিম মহিলারা একইভাবে নেকাবে মুখ ঢেকে চলে সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছেন। এমনকি, ইংল্যান্ডের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ২০১৮ সালে বোরকা ও নেকাব পরা মহিলাদের চিঠির বাক্স এবং ব্যাংক ডাকাতের সাথে তুলনা করেছিলেন। টেলিগ্রাফ কলামে তিনি মন্তব্য করেছিলেন, হাস্যকর লোকেরা নেকাবে মুখ ঢাকতে পছন্দ করে। পর্যবেক্ষক সংস্থা টেল মামা অনুসারে, বরিসের এ একক নিবন্ধের ফলে ইসলামবিদ্বেষের ঘটনা ৩শ’ ৭৫ শতাংশ বেড়ে যায় এবং এটি প্রকাশের ৩ সপ্তাহের মধ্যে অফলাইন ঘটনার ৪২ শতাংশে বরিস জনসন অথবা তার কলামে ব্যবহৃত ভাষাটি সরাসরি উল্লেখ করে মুসলিমবিদ্বেষ প্রকাশ করা হয়েছে। যার মধ্যে মুসলিম মহিলাদের নেকাব, লেটারবক্স এবং নিনজা শব্দগুলি ব্যবহার করা হয়েছে বলে রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে।

২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে ইংল্যান্ডে ৪৭ শতাংশ ধর্মীয় বিদ্বেষমূলক অপরাধের শিকার হয়েছে মুসলিমরা। টেল মামা’র প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, এসব ঘটনার প্রায় ৮০ শতাংশ ভুক্তভোগী দর্শনীয়ভাবে চিহ্নিত মুসলিম যারা ইসলাম অনুসরণ করে পোশাক পরেন। ইংল্যান্ডে বসবাসকারী স্যান্ড্রা জেমস স্মরণ করেন, ‘তিনি বর্ণবাদী ও ইসলাম বিদ্বেষীদের বৈধতা দিয়েছেন।’ জেমস ২০০৬ সালে ইসলাম গ্রহণ করেন এবং ৬ বছর ধরে নেকাব ব্যবহার করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমার বেশিরভাগ নেতিবাচক অভিজ্ঞতা ছিল কেনাকাটা করার সময়। আমাকে শপথ করতে বলা হয়েছে, আমার নিজের দেশে ফিরে যেতে বলা হয়েছে, অনেকবার আইএসআইএস বা সন্ত্রাসী বলে গালি দেয়া হয়েছে।’ একবার টেস্কোতে এক অপরিচিত ব্যক্তি একটি বাজারের ট্রলিকে গর্ভবতী জেমসের দিকে ঠেলে দিয়েছিলেন।
তবে, বিশ্বব্যাপী যখন করোনভাইরাস মহামারীটি ছড়িয়ে পড়েছে এবং দেশগুলি ভাইরাসের বিস্তারকে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে, তখন মুসলিমদের আর মুখ ঢাকা সংখ্যালঘু হয়ে থাকতে হবে না। সেই একই রাজনীতিবিদ বরিস জনসন, যিনি ২০১৮ সালে তার কলামটি দিয়ে মুসলিমবিদ্বেষী অনুভ‚তির একটি জোয়ার সৃষ্টি করেছিলেন, ২০২০ সালের ১৫ জুন থেকে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করে নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, ইংল্যান্ডের সমস্ত লোক গণপরিবহনগুলিতে মুখ ঢেকে রাখবে। পাশাপাশি, মুদি দোকান বা সুপারমার্কেটের মতো সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে না পারার মতো কঠিন স্থানসহ অন্যান্য ক্ষেত্রেও মাস্ক ব্যবহার করতে সবাইকে উৎসাহ দিয়েছেন। কীভাবে ঘরে বসে নিজের মাস্ক বানাতে হয়, সে সম্পর্কে নির্দেশিকাও জারি করেছে বরিস জনসনের সরকার।
গত দশকে জনসাধারণের মধ্যে ইসলামিক নেকাব পরিধান করে থাকার বিরুদ্ধে যেসব যুক্তি দেখানো হয়েছিল যে, নেকাব পরলে শ্রম সমাজের অংশ হতে পারা যাবে না। কারণ নেকাব পরিহিতদের সাথে লোকেরা কথা বলতে পারে না ও কর্তৃপক্ষ মুখ চিহ্নিত করতে পারে না এবং সম্পূর্ণ দৃশ্যমান না হলে আপনি একটি সুরক্ষা ঝুঁকি। বিশেষত, বিমানবন্দরগুলিতে, বিমান এবং অন্যান্য ধরনের পরিবহনে, যেগুলি অতীতের মুসলিম বিরোধী মনোভাবের স্পর্শকাতর স্থান এবং বর্তমানে ভাইরাসের কারণে মুখ ঢেকে রাখার কেন্দ্রস্থলে পরিণত হয়েছে।
এই ভন্ডামিতে ফ্রান্সের উদাহরণ সবচেয়ে বেশি উল্লেখযোগ্য। ২০১১ সালে দেশটির সরকার সমস্ত রকমের ধর্মীয় মুখের আবরণকে অবৈধ ঘোষণা করেছিল। ২০২০ সালের ১০ মে তারাই আবার শাস্তি জরিমানাসহ কোভিড-১৯’র কারণে মুখের আবরণ বাধ্যতামূলক করে দেয়। তবে, সেখানে বোরকা এখনও নিষিদ্ধ।
লিসেস্টারের স্কুল শিক্ষিকা ২৬ বছরের ইয়াসমিন বক্কর এ প্রসঙ্গে বলেছেন, এসব কার্যকলাপের পেছনে কখোনো যৌক্তিক কারণ ছিল না। প্রকৃতপক্ষে এ সবকিছুই মুসলিমবিদ্বেষ কেন্দ্রিক। নতুন নিয়মগুলো লোকের জাতিবিদ্বেষী পক্ষপাতিত্বকে উন্মোচিত করেছে। তিনি বলেন, ‘এটি কখনও সুরক্ষা ব্যবস্থা লঙ্ঘন বা সনাক্তকরণ বা এমনকি বৃহত্তর সমাজে যোগাযোগের বাধা হিসাবে ছিল না। এটি ছিল তা নিয়ে, যা পর্দার প্রতিনিধিত্ব করে এবং এটি ইসলামের প্রতিনিধিত্ব করে।’
যদিও আমরা জানি না যে, ইংল্যান্ডে মুখের মাস্ক বা আবরণ পরিধাণ করাটা কতক্ষণ বাধ্যতামূলকভাবে টিকে থাকবে, যদি কমপক্ষে ২০২১ অবধি কোনও ভ্যাকসিনের সম্ভাবনা না থাকে এবং মহামারির ২য় ধাক্কার আশঙ্কা থাকে, তবে তা আশা করা যুক্তিযুক্ত যে, এটি ছুড়ে ফেলে দেয়া যাবে না। যেসব মুসলিম মহিলা দীর্ঘকাল ধরে পর্দা করার জন্য আড়ালে লুকানো বর্ণবাদের শিকার, তারা আশা করেন যে, মুখের নেকাব এখন থেকে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে, পাশাপাশি, ভবিষ্যতের পক্ষপাত এবং বৈরিতা থেকে সুরক্ষা দেবে এবং এখন আর রাজনীতিবিদ বা জনসাধারণ দাবি করতে পারবেন না যে, মুখ ঢেকে রাখাটা হুমকিস্বরূপ, যখন তাদের নিজেদের মুখগুলি আয়নাতে দেখা দরকার মাত্র।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close