হাজার বছরের গণনা মুহূর্তে

কোয়ান্টাম কম্পিউটারে গুগলের সাফল্য

কোয়ান্টাম কম্পিউটারের গবেষণায় অভ‚তপূর্ব সাফল্য অর্জন করল গুগল। সম্প্রতি পরীক্ষামুলকভাবে একটি কোয়ান্টাম কম্পিউটার প্রসেসর চালিয়েছে জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগল। নতুন এই প্রসেসর মুহ‚র্তে যে গণনা করেছে সবথেকে শক্তিশালী সুপার কম্পিউটারেরও সেই গণনা করতে কয়েক হাজার বছর সময় লাগবে। গত বুধবার নেচার জার্নাল এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

কোয়ান্টাম কম্পিউটিং এর মাধ্যমে প্রসেসিং স্পিড অনেক বাড়িয়ে নেয়া সম্ভব। এখন যে সব গণনা করতে কয়েক বছর সময় লাগে ভবিষ্যতে মুহূর্তে সেই গণনা করতে পারবে কোয়ান্টাম কম্পিউটার। মেমরিতে কোয়ান্টাম বিটস বা কিউবিটস ব্যবহারের মাধ্যমে কোয়ান্টাম কম্পিউটার কাজ করে। সেখানে বাইনারি (শূন্য ও এক) হিসাবে তথ্য সঞ্চিত থাকলেও কোয়ানন্টাম সুপারপজিশনিং এর মাধ্যমে তার শক্তি বহুগুণ বেড়ে যায়। গুগল, মাইক্রোসফট, আইবিএম, ইন্টেল এর মতো বড় টেক কোম্পানিগুলো কোয়ান্টাম কম্পিউটিং রিসার্চে যুক্ত রয়েছে।
সম্প্রতি দ্য ভার্জ এ প্রকাশিত রিপোর্টে জানানো হয়েছে, ৫৪ কিউবিটের ‘সিকামোর’ নামের একটি কোয়ান্টাম প্রসেসর ব্যবহার করে একটি গণনা ২০০ সেকেন্ডে শেষ করেছে গুগল। এই মুহূর্তে বিশ্বের সবথেকে শক্তিশালী কম্পিউটারে একই গণনা করতে ১০ হাজার বছরের বেশি সময় লাগবে। যদিও আইবিএম জানিয়েছে, গুগল আজকের সুপারকম্পিউটারকে ছোট করে দেখাচ্ছে। আসলে সেগুলো ১০ হাজার বছর নয়, ৬০ ঘন্টায় এই কাজ করতে পারবে। তবে বিতর্ক যাই থাক, কোয়ান্টাম কম্পিউটার বাস্তবে প্রয়োগ করে গুগল প্রমাণ করল এই প্রযুক্তি অর্জন এখন সম্ভব। যদিও এটি বাজারে আসতে আরো কয়েক বছর সময় লাগবে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close