এক্সক্লুসিভপ্রবাসরমণী

আমিরাত প্রবাসী বাংলাদেশি নারী উদ্যোক্তা জেসমিনের সাফল্য

সর্বাধিক রেমিট্যান্স প্রেরণে সিআইপি স্বীকৃতি অর্জন

jesminছালাহউদ্দিন, আরব আমিরাত থেকে: বাংলাদেশে ব্যাংকিং চ্যানেলে সর্বাধিক রেমিট্যান্স প্রেরণ করে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক সিআইপি (কমার্শিয়াল ইমপটেন্ট পার্সন) ২০১৬ নির্বাচিত হয়ে সম্মাননা ক্রেস্ট ও সনদ লাভ করেছেন আরব আমিরাতে বাংলাদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান নিওমেক্স ট্রেডিং এলএলসির চেয়ারম্যান মোসাঃ জেসমিন আক্তার। সম্প্রতি মন্ত্রণালয় থেকে এ বিষয়ে গেজেট জারি হওয়ায় গত ৫ জুন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় কর্তৃক ঢাকায় আবাকাস সেন্টারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়।
বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্য থেকে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স প্রেরণকারীদের মধ্যে ৩৫ জনকে সিআইপি সন্মাননা প্রদান করা হয়। তার মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেন মোসাঃ জেসমিন আক্তার। তাকে সিআইপি সন্মাননা ক্রেস্ট ও সনদ প্রদান করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি। এ সময় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার আলম, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. নমিতা হালদারসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, মোসাঃ জেসমিন আক্তার আরব আমিরাতে বাংলাদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান টোকিও সেট গ্রুপ অফ কোম্পানির চেয়ারম্যান ও দুবাই বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের প্রতিষ্ঠাতা সহ-সভাপতি ড. মোহাম্মদ মাহাবুব আলম মানিকের সহধর্মিনী। তার স্বামী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোহাম্মদ মাহাবুব আলম মানিকও ‘বাংলাদেশ ব্যাংক রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ড-২০১৬’ লাভ করেন। তখন বাংলাদেশীদের মধ্যে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স প্রেরণকারী ২৬ প্রবাসী বাংলাদেশীর মধ্যে ৩য় স্থান লাভ করেন মাহাবুব আলম মানিক। দুই ছেলে ও দুই মেয়ে নিয়ে নারী ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা জেসমিন অাক্তার সংসারিক জীবনে ছেলে মেয়ে মানুষ করার পেছনেও যথেষ্ঠ সচেতন। বড় মেয়ে ইতিমধ্যে মালেশিয়া থেকে ডাক্তার হয়ে ইন্টারনি করছেন। বাকি ছেলে মেয়েরাও উচ্ছতর ডিগ্রী নিতে পড়াশুনা করে চলেছেন।
কুমিল্লার ধনিয়াখোলা কালির বাজার এলাকার মোহাম্মদ শফিকুর রহমানের মেয়ে জেসমিন অাক্তার স্বামীর হাত ধরে সংসার করতে অামিরাতে পাড়ি জমান। সারাদিনই সাংসারিক ব্যস্ততায় ডুবে থাকা জেসমিনের একসময় স্বপ্ন জাগে স্বামীকে ব্যবসায় সহয়তা করার। ২০০৯ সাল থেকে শুরু হয় ব্যবসায়ী হিসেবে তার পথ চলা শুরু। এরপর এক এক করে জেসমিন অাজ ১০ টি প্রতিষ্ঠানের গর্বিত স্বত্বাধিকারিণী। পারিবারিক ব্যবসায়িক  প্রতিষ্ঠানের ব্রান্ডিং নাম হচ্ছে টকিও গ্রুপ। এই ব্রান্ডে জেসমিনের স্বামী মাহাবুব অালম মানিকের নানা দেশে প্রায় ৭২ টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। মূলত ইলেক্ট্রনিক্স, পারফিউম ও কাপড়ের ব্যবসার প্রসার ঘটিয়েছেন তারা এই ব্রান্ডিং নামে।
মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম ধনী দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে ব্যবসায় সাফল্যের ধারা অব্যাহত রেখে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স প্রেরণ করে নিজ দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে অসামান্য অবদান ও সুনাম বয়ে আনা এবং নারীদের মধ্যে প্রথম সিআইপি সম্মাননা লাভ করা বাংলাদেশী এই নারী উদ্যোক্তা জেসমিন আক্তারের সাফল্য এখন আমিরাতে মডেল হিসেবে অনুপ্রাণিত করছে অন্য নারী উদ্যোক্তাদেরও।

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Close