মোবাইল অ্যাপস চালু করল ডিএসই

DSEশেয়ারবাজারের তথ্য আরও সহজে পেতে নতুন মোবাইল অ্যাপস চালু করল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। এর নাম দেয়া হয়েছে ডিএসই ইনফো (উঝঊ ওহভড়)। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বুধবার ডিএসইতে অ্যাপসটি উদ্বোধন করেন। এই মন্ত্রণালয়ই প্রকল্পটিতে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা দিয়েছে। অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের ছোট কোম্পানি শেয়ারবাজার থেকে মূলধন সংগ্রহের অনুমতি পাবে। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বর্তমানে অ্যাপসটি গুগল প্লে স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে। এটি বিনা মূল্যেই ডাউনলোড করা যাবে। এর মাধ্যমে বিনিয়োগকারীরা অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলে শেয়ারসম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য খুব সহজেই দেখতে পারবেন। অনুষ্ঠানে আরও জানানো হয়, ডিএসইর বতমান ওয়েবসাইট অনেক ভারি। ফলে বিনিয়োগকারীদের প্রয়োজনীয় তথ্য খুঁজে পেতে দেরি হয়। আর নতুন এ প্রকল্পের মাধ্যমে বিনিয়োগকারীরা দ্রুত সেবা পাবেন। এর মাধ্যমে পৃথিবীর যে কোনো প্রান্ত থেকে যে কেউ ডিএসইতে তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানির বিস্তারিত তথ্য পাবেন। এ ছাড়া যে কোনো জায়গায় বসে বিনিয়োগকারীরা মোবাইলে নিজস্ব পোর্টফোলিও, তার অ্যাকাউন্টের শেয়ার সম্পর্কে জানতে পারবেন। এই অ্যাপসের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করলে আগের চেয়ে ৩০-৩৫ শতাংশ টাকা কম খরচ হবে। তবে সরকারি অর্থায়নে তৈরি হলেও এই অ্যাপসের মালিকানা এবং আয় ডিএসইর কাছে থাকবে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের ছোট কোম্পানি শেয়ারবাজার থেকে মূলধন সংগ্রহের অনুমতি পাবে। ইতিমধ্যে এ সংক্রান্ত একটি কর্মপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে সরকার। তিনি বলেন, প্রযুক্তির বিস্তার যখন সারা বিশ্বে, তখন বাংলাদেশ কেন পিছিয়ে থাকবে। বাংলাদেশও প্রযুক্তিতে এগিয়ে যাচ্ছে। এখন একজন কৃষকও প্রযুক্তির সুবিধা পাচ্ছেন। আমরা জনগণের আরও কাছাকাছি পৌঁছাতে চাই। আজকের এই অ্যাপস বিনিয়োগকারীদের অনেক সুবিধা দেবে। তারা প্রযুক্তির আওতায় এসে খুব সহজেই পুঁজিবাজারে ব্যবসা করতে পারবেন। তিনি আরও বলেন, সরকার প্রযুক্তি খাতকে প্রাধান্য দিয়ে ছোট পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানিগুলোকে বাজারে আনার চেষ্টা করছে। এ জন্য এসব কোম্পানিকে ভেঞ্চার কেপিটাল কিংবা ইকুইটি ফান্ড সহায়তা করা হবে। তিনি বলেন, সরকার এমন ৫০টি কোম্পানিকে বাজারে আনতে দুবছরের জন্য ইকুইটি ফান্ডের ব্যবস্থা করবে। বক্তারা বলেন, ওয়েবসাইটের মাধ্যমে শেয়ারবাজারের বিভিন্ন সেবা ও তথ্য বিনিয়োগকারীদের কাছে পৌঁছে দিয়ে আসছে ডিএসই। আর বাংলাদেশে অ্যান্ড্রয়েড ফোনের ব্যবহার দ্রুত বাড়ছে। চলতি বছরের জুলাই মাসের তথ্য অনুসারে দেশে ইন্টারনেট গ্রাহক ৩ কোটি ৮৫ লাখ পৌঁছেছে। এর বড় অংশই মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করে।
ফলে মোবাইলে শেয়ারবাজারের তথ্য দ্রুত জানাতে এ উদ্যোগ নেয়া হল। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে মোবাইলে শেয়ার লেনদেন করা যাবে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close