ইংল্যান্ডের অনুশীলনে ফুটবল নিষিদ্ধ

বেশ আগে থেকেই ক্রিকেট দলের অনুশীলনের বাড়তি অনুসঙ্গ হিসেবে যোগ হয়েছে ফুটবল। গা-গরম করতে কখনও দলীয় কখনও ব্যক্তিগতভাবেও ফুটবল নিয়ে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে ক্রিকেটারদের। এতে করে দীর্ঘ হয়েছে ইনজুরির তালিকা। অনেকের চোট ক্যারিয়ারেই বসিয়েছে থাবা। এবার তাই ক্রিকেটারদের ওয়ার্ম-আপে ফুটবল খেলা নিষিদ্ধ করেছে ইংল্যান্ড। গতপররশুই অনুশীলনের সময়ে ফুটবল খেলতে গিয়ে চোট পেয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে ওপেনার ররি বার্নস ছিটকে যাওয়ার পরই এই সিদ্ধান্তে এসেছে দলটি।

কেপ টাউনে গতকালই শুরু হয়েছে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট। রিপোর্টটি লেখা পর্যন্ত ৮৩ ওভার শেষে টস জিতে ব্যাট করতে নামা ইংল্যান্ডের সংগ্রহ ৯ উইকেটে ২৩৫। আগের দিন ওয়ার্ম-আপের সময়ে ফুটবল খেলতে গিয়ে বাজেভাবে বাঁ পায়ের গোড়ালির গাঁটে চোট পান বার্নস। সিরিজের বাকি দুই টেস্টেও খেলতে পারবেন না ছন্দে থাকা (আগের ম্যাচে ৯ ও ৮৪ রান) টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান। ঐদিন রাতেই তার দেশে ফিরে যাওয়ার কথা জানিয়েছে ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড। এর পরই ইসিবির পুরুষ ক্রিকেটের পরিচালক অ্যাশলি জাইলস ও কোচ ক্রিস সিলভারউড এই সিদ্ধান্ত নেন।

২০১৮ সালের শেষদিকে শ্রীলঙ্কা সফরে অনুশীলনে ফুটবল খেলতে গিয়ে চোট পেয়েছিলেন ইংল্যান্ডের উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান জনি বেয়ারস্টো। তার আগে টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান জো ডেনলি ও পেসার জেমস অ্যান্ডারসনেরও একই পরিণতি হয়েছিল। তাই বছরখানেক আগে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই জাইলস অনুশীলনে ফুটবল খেলার বিরোধিতা করে আসছিলেন। তবে ইংল্যান্ডের সিনিয়র ক্রিকেটাররা তার সঙ্গে একমত না থাকায় তখন ফুটবল বন্ধ করতে পারেননি। বার্নস চোটে পড়ার পর এবার অবশ্য কোনো আপত্তি তোলার সুযোগ পাননি তারা।
ক্রিকেটারদের অনুশীলনে জাইলসের ফুটবল নিষিদ্ধ করার নজির এবারই প্রথম নয়। এর আগে তিনি দেশটির ঘরোয়া দল ওয়ারউইকশায়ারের ক্রিকেট পরিচালক ছিলেন। সেখানেও ওয়ার্ম-আপে তিনি নিষিদ্ধ করেছিলেন ফুটবল খেলা। সেঞ্চুরিয়নে সিরিজের প্রথম টেস্টে ১০৭ রানে হেরে ১-০ তে পিছিয়ে আছে ইংল্যান্ড। চোট ভালোই ভোগাচ্ছে সফরকারীদের। বার্নস ছাড়াও চোটের কারণে কেপ টাউন টেস্টে খেলতে পারছেন না গতিময় পেসার জফরা আর্চার।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close