ব্যায়ের সাথে বেনিফিটের কোন সামঞ্জস্য নেই

২০২০ সালের শেষদিকে বেনিফিট বৃদ্ধি স্থগিতের সিদ্ধান্ত তুলে নেয়ার সরকারী ঘোষনাকে এক ধরনের ফাঁকি হিসাবে উল্লেখ করেছেন টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস। মেয়র বলেন, সরকারের উচিৎ এদেশের ওয়েলফেয়ার সিস্টেমকে ঠিক করার পাশাপাশি ইউনিভার্সেল ক্রেডিট বাতিল করা।

উল্লেখ্য যে, চলতি আর্থিক বছরের শেষে তা তুলে নেয়ার আগাম ঘোষনা দিয়ে টোরী সরকার ২০১৬ সালে বেনিফিট বৃদ্ধি স্থগিত ঘোষনা করে। মূল্যস্ফিতির সাথে সঙ্গতী না রেখেই সরকার তা বাস্তবায়ন করেছিলো। ইনস্টিটিউট অব ফিসক্যাল স্টাডিজ এর মতে বেনিফিট ফ্রিজের কারনে এদেশের ৭ মিলিয়ন দরিদ্র পরিবার গড়ে প্রতিবছর ২ হাজার পাউন্ডেরও বেশী অথবা ৬% ইনকাম হারিয়েছে। ২০১৫ সালের পর তাদের কোন বেনিফিট বৃদ্ধি পায়নি।

২০১০ সাল থেকে সরকারের ব্যয় সংকোচননীতি বাস্তবায়নের কারনে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলকে ১৯০ মিলিয়ন পাউন্ড সাশ্রয় করতে হয়েছে। তারপরও কাউন্সিলের ট্যাক্স রিডাকশন স্কিম, ক্রাইসিস লোন এবং ফ্রি স্কুল মিলকে সুরক্ষা করা হয়েছে।

টাওয়ার হ্যামলেটস হোমসের সাথে যৌথভাবে চালু করা ফাইন্যান্সিয়াল হেলথ সেন্টার থেকে প্রথম বছরেই ২ হাজার বাসিন্দাকে সহযোগিতা করা হয়েছে। মেয়রের ট্যাকেলিং পোভার্টি ফান্ডের অংশ হিসাবে কাউন্সিলের আউটরিচ টিম সপ্তাহের দ্বিতীয় দিন কাজ শুরু করতে যাচ্চেছ। তারা ফুড ব্যাংকের মতো লোকেশনেও সহযোগিতা করবে।

মেয়র জন বিগস এব্যাপারে তার প্রতিক্রিয়ায় আরো বলেন, বছরের পর বছর টাওয়ার হ্যামলেটসের বাসিন্দাদের আয়ের সাথে ব্যায়ের কোন সামঞ্জস্য ছিলো না। এখন বেনিফিট স্থগিত তুলে নেয়ার পুন:ঘোষনা এক ধরনের শীতল বার্তা ছাড়া আর কিছু নয়। এতে বাসিন্দাদের জন্য কোন সুখবর নেই।

তিনি বলেন, আমরা বাসিন্দাদের দারিদ্র্যতাকে দূর করার বিষয়টিকে সবসময়ই প্রাধান্য দিয়েছি কারন আমি জানি যে সরকারের বাজেট কাটের কারনে তারা কষ্টের মধ্যে রয়েছেন। অনেক কঠিন কঠিন সিদ্ধান্ত নেয়া সত্ত্বেও আমরা সবসময়ই চেষ্টা করেছি সমাজের সবচাইতে দূর্বল অংশকে সহযোগিতা করতে।

ডেপুটি মেয়র এবং ট্যাকেলিং পোভার্টি বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার কাউন্সিলার র‌্যাচেল ব্ল্যাক বলেন, বারার সবচাইতে দূর্বল অংশকে সহযোগিতা করতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্চিছ। ফ্রি স্কুল মিল থেকে শুরু করে, হলিডে পোভার্টি হাঙ্গার এবং ফুড ব্যাংকের মতো স্থানের আউটিরিচ এডভাইস ওয়ার্কারদের আমরা প্রাধান্য দিয়েছি। কিন্তু সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কারনে ভেঙ্গে পড়া ওয়েলফেয়ার সিস্টেমকে তাদেরকেই ঠিক করতে হবে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close