বাজেট কাট: এক হয়ে গেল টাওয়ার হ্যামলেটস ও হ্যাকনীর পুলিশ ফোর্স

পুলিশের অরিজিনাল বাজেট ফিরিয়ে দেয়ার আহ্বান জানালেন মেয়র জন বিগস

টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস চ্যাঞ্চেলার অব এক্সচেকারকে তার স্প্রিং স্টেইটম্যান্টে পুলিশের অরিজিনাল বাজেট ফিরিয়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। গত ১৩ মার্চ বুধবার চ্যাঞ্চেলার অব এক্সচেকার কতৃক ঘোষিত স্প্রিং বাজেট স্টেইটম্যান্ট ঘোষনার প্রাক্কালে মেয়র এই আহ্বান জানান।

বিবৃতিতে মেয়র জন বিগস বলেন, বর্তমার টোরী সরকারের পুলিশ বাজেট কাটের কারনে সমাজে যেসব প্রতিক্রিয়া ঘটছে এর সবকিছুকেই তারা অস্বীকার করছে। এমন কি সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তাদের সর্তকবানীকেও তারা এড়িয়ে যাচ্ছেন। আপনি ডিউটি থেকে শত শত পুলিশ অফিসার সরিয়ে ফেলবেন আর সমাজে এর কোন এফেক্ট হবে না এটা হতে পারে না।

মেয়র বলেন, সারা দেশের লোকাল অথরিটিগুলো বাজেট কাটের কারনে শূন্য হয়ে যাওয়া পদগুলো পূরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমরাও মিলিয়ন মিলিয়ন পাউন্ড খরচ করছি। কিন্তু কাউন্সিলের পক্ষে শূন্য হয়ে যাওয়া প্রত্যেকটি পদ পূরন করা সম্ভব নয়। আর এজন্যই চ্যাঞ্চেলারের কাছে দাবী জানাচ্ছি সমাজের জন্য ভয়ংকর এই প্রবনতা থেকে সরে আসার জন্য।

উল্লেখ্য যে, ২০১০ সালের পরে টাওয়ার হ্যামলেটসে নাটকীয়ভাবে পুলিশের সংখ্যা কমেছে। সম্প্রতি আরো অর্থ সাশ্রয়ের লক্ষ্যে টাওয়ার হ্যামলেটস এবং হ্যাকনীর পুলিশ ফোর্স একত্রিত হয়ে সেন্ট্রাল ইস্ট কমান্ড ইউনিট হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে এবং সম্মিলিতভাবে এই দুই বারা ২০১০ সালের পর প্রায় ৫শ পুলিশ অফিসার হারিয়েছে। একইভাবে পুলিশের কমিউনিটি সাপোর্ট অফিসারও কমেছে। এছাড়া বন্ধ হয়েছে লাইম হাউজ, ব্রিক লেইন এবং আইল অব ডগস পুলিশ স্টেশন।

পুলিশের বাজেট কাটের প্রতিক্রিয়া সমগ্র লন্ডন শহরেই পড়েছে। ২০১০ সালের পর মেট্রোপলিটন পুলিশের বাজেট কমেছে ৮শ ৫০ মিলিয়ন পাউন্ড। মেট্রোপলিটন পুলিশকে ২০২২/২৩ সালের মধ্যে আরো ২শ ৬৩ মিলিয়ন পাউন্ড সাশ্রয় করতে হবে।

সম্প্রতী প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে বলেছেন যে, পুলিশের সংখ্যা কমার সাথে অপরাধ বৃদ্ধির কোন সম্পর্ক নেই। কিন্তু তার এই অভিমতের সাথে দ্বিমত পোষন করেছেন কমিশনার ক্রেসিডা ডিক। কমিশনারের মতে সমাজে ভায়োলেন্ট ক্রাইম বৃদ্ধির সাথে এর সম্পর্ক রয়েছে।

ডেপুটি মেয়র এবং কেবিনেট মেম্বার ফর কমিউনিটি সেইফটি কাউন্সিলার আসমা বেগম বলেন ক্রাইম এন্ড এন্টি সোশাল বিহেভিয়ার বারার বাসিন্দাদের অন্যতম উদ্বেগের বিষয়। সম্প্রতি আমরা নতুন এন্টি সোশাল বিহেভিয়ার টিমের জন্য ১.৭ মিলিয়ন পাউন্ড বরাদ্দ করেছি। এটি অতিরিক্ত পুলিশ অফিসার নিয়োগের জন্য ইতিমধ্যে দেয়া বরাদ্দের বাইরে। তিনি বলেন, কাউন্সিল, পুলিশ এবং পাবলিক সেক্টর টোরী সরকারের বাজেট কাটের কারনে মারাত্মকভাবে ভুগছে। চ্যাঞ্চেলারের উচিৎ মানুষের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এসব ইস্যুতে কেটে নেয়া অর্থ ফিরিয়ে দেয়া।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Close