সৌদি ভার্সিটিগুলোতে কওমি সনদ গ্রহণের অনুরোধ ধর্মপ্রতিমন্ত্রীর

গতকাল রিয়াদে সৌদিআরবের ইসলামবিষয়ক মন্ত্রী ড. আবদুল লতিফ বিন আবদুল আজিজ আলে শায়খের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহর দ্বিপাক্ষিক বৈঠক হয়। বৈঠকে অন্যতম আলোচ্য বিষয় ছিল সৌদিআরবের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে কওমি সনদপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ প্রদান।

বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক কওমি সনদের স্বীকৃতি, কওমি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসের সনদকে আরবি ও ইসলামিক সাডিজ বিষয়ে মাস্টার্সের সমমান প্রদান, দেশের আর্থ-সামাজিক কর্মকাণ্ডে কওমি পড়ুয়া ছাত্র ও আলেমসমাজের ভূমিকা এবং প্রচলিত অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রদের তুলনায় কওমি ছাত্র-ছাত্রীদের ইসলাম ও আরবিভাষায় বহুমাত্রিক যোগ্যতা ইত্যাদি বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরা হয় উক্ত বৈঠকে। সৌদি মন্ত্রীও মনযোগসহকারে সবকথা শুনেন এবং প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দেন।

উল্লেখ্য, স্মরণকালের ইতিহাসে বাংলাদেশের বর্তমান সরকার কর্তৃক কওমি সনদ ও কওমি ডিগ্রির স্বীকৃতি প্রদান এক ঐতিহাসিক ঘটনা। এতে সাধারণ শিক্ষিত সমাজে পিছিয়ে পড়া ও অবহেলিত লক্ষ লক্ষ কওমি ছাত্র ও আলেম-উলামাদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হয়। সমাজসেবা, চাকরি, উচ্চশিক্ষাগ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি হয়। এতোদিন বিষয়টি দেশের অভ্যন্তরে থাকলেও এবং বহির্বিশ্বে ব্যক্তিগত উদ্যোগে দু’একজন কওমিছাত্র আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার সুযোগ পেলেও- আমার জানা মতে এ-প্রথম সরকারিভাবে কোনো প্রয়াস নেয়া হলো। এমন একটি মহান উদ্যোগের সাক্ষী হতে পেরে আমি গর্ববোধ করছি।

বৈঠকে সৌদি ইসলামবিষয়ক উপমন্ত্রী ড, ইউসুফ বিন মুহাম্মদ, ধর্মসচিব ড. আবদুল্লাহ আস-সামিল, বিদেশে সৌদি মিশনসমূহে নিযুক্ত ধর্মীয় এ্যাটাশে বিষয়ক মহাপরিচালক শায়খ মুহাম্মদ বিন আবদুল ওয়াহিদ আল-আরিফি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সৌদিআরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জনাব গোলাম মসীহ, ধর্মসচিব আনিসুর রহমান, বাংলাদেশ দূতাবাসের উপমিশন প্রধান ড. নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Close