মনোনয়নপত্র বাতিল হলো যাদের

একাদশ সংসদ নির্বাচনের ৩০০ আসনের মনোনয়নপত্র রবিবার সকাল থেকেই বাছাই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। রিটার্নিং অফিসাররা যার যার এলাকায় জমা পড়া মনোনয়নপত্র বাছাই করে বৈধ প্রার্থীর তালিকা তৈরি করছেন। ইতোমধ্যেই বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, আবদুল কাদের সিদ্দিকী, রেজা কিবরিয়া, গোলাম মাওলা রনি, রুহুল আমিন হাওলাদার, বিএনপির প্রার্থী আমান উল্লাহ আমান, মীর মো. নাছির উদ্দিন ও তাঁর ছেলে মীর মো. হেলাল উদ্দিনসহ অনেক প্রভাবশালী ও জাঁদরেল প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়ে গেছে।

সারাদেশে যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে:

খালেদা জিয়া
দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার তিনটি মনোনয়নপত্রই রিটার্নিং কর্মকর্তার বাছাইয়ে বাতিল হয়ে গেছে। রোববার মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে ফেনীর রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. ওয়াহিদুজ্জামান ফেনী-১ আসনে এবং বগুড়ার রিটার্নিং কর্মকর্তা ফয়েজ আহম্মদ বগুড়া-৬ ও বগুড়া-৭ আসনে খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন।
দুর্নীতি মামলায় দুই বছরের বেশি সাজা হওয়ার বিষয়টিকেই মনোনয়নপত্র বাতিলের কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

ঢাকা-৪
ঢাকা-৪ (শ্যামপুর ও কদমতলী) আসনের মোট ১৫ জন প্রার্থীর মধ্যে ৬ জনের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। এদের একজন বিকল্পধারা বাকিদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথা ছিল। ঢাকা-৪ আসনে যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে তারা হচ্ছেন বিকল্পধারার কবির হোসেন (ব্র্যাক ব্যাংকে ঋণ খেলাপি), স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মালেক (ঋণ-সংক্রান্ত তথ্য দেননি, সিটি ব্যাংকে ঋণ খেলাপি), স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নজরুল ইসলাম (সোনালী ব্যাংকে ঋণ খেলাপি), স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মোশারফ হোসেন।

ঢাকা-১৪
ঢাকা-১৪ আসনে মোট ১৩ প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। এর মধ্যে আটজনের বৈধ এবং পাঁচ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। ঢাকা বিভাগের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয় কার্যক্রম শুরু হয়।
সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ঢাকা-১৪ আসনে মনোনয়ন বৈধ হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য আসলামুল হক, বিএনপির আমিুনুল হক, মুন্সি বজলুল বাসিত আঞ্জু, জাতীয় পার্টির মুস্তাকুর রহমান, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডির কামাল উদ্দিন পাটোয়ারী, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) রিয়াজ উদ্দিন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আবু ইউসুফ, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের মো. আনোয়ার হোসেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে বাংলাদেশ ইসলামিক ফ্রন্টের শাহাজাদা সাইফুদ্দিনের, জামানত না দেয়ায় বাতিল হয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থী আজমীরা সুলতানার, ঋণ খেলাপি হওয়ায় বাতিল হয়েছেন বিএনপির সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক ও জাকের পার্টির কায়সার হামিদ এবং জাকির হোসেনের।

হবিগঞ্জ
হবিগঞ্জ-১ আসনে গণফোরাম মনোনীত প্রার্থী সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। সিটি ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড বিভাগ থেকে ঋণ খেলাপি হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এ ছাড়া একই আসনে আরও ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তারা হলেন- স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হান্নান, ইসলামী ফ্রন্টের জুবায়ের আহমেদ, ইসলামিক ফ্রন্টের বদরপুর রেজা সেলিম ও ইসলামী আন্দোলনের আবু হানিফ আহমদ হোসেন।

ইমরান এইচ সরকার
কুড়িগ্রাম-৪ আসন (রাজিবপুর,রৌমারী ও চিলমারী উপজেলা) থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকারের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মোছা. সুলতানা পারভীন তার মনোনয়নপত্র বাতিল বলে ঘোষণা করেন।

গোলাম মাওলা রনি
হলফনামায় স্বাক্ষর না থাকায় সদ্য বিএনপিতে যোগ দেয়া গোলাম মাওলা রনির মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। আজ রোববার মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের পর এই ঘোষণা দেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মতিউল ইসলাম চৌধুরী। রনি পটুয়াখালী-৩ (দশমিনা-গলাচিপা) আসনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

খোকাপুত্র ইশরাক হোসেন
ঋণখেলাপি হওয়ার কারণে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার ছেলে প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

পটুয়াখালী
পটুয়াখালী-৩ আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী গোলাম মাওলা রনির মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন জেলা রিটার্নিং অফিসার। রোববার দুপুর ১২টায় পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের সময় এ ঘোষণা দেয়া হয়। আশরাফুল ইসলাম আলম ওরফে হিরো আলমের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে।

রংপুর
রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া ও আংশিক সিটি) আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আসাদুজ্জামান বাবলুর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে।

রাজশাহী
রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) আসনে বিএনপির প্রার্থী ও সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হকের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে।

কুড়িগ্রাম
কুড়িগ্রাম-৪ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমরান এইচ সরকারের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং অফিসার।

বাগের হাট
বাগেরহাটের ৪টি সংসদীয় আসনে মহাজোট, ঐক্যফ্রন্ট ও বিভিন্ন দলসহ সর্বমোট ২৯ জন প্রার্থীর মধ্যে ৩ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন জেলা রিটার্নিং অফিসার। বাগেরহাট-১ আসনে ঋণ খেলাপের দায়ে জাতীয় পার্টির আহমেদ জোবায়েরের এবং বাগেরহাট-২ আসনে একই দলের প্রার্থী শেখ মোস্তাফিজুর রহমানের মনোনয়নপত্র ত্রুটিপূর্ণ থাকায় তা বাতিল করা হয়েছে। এ ছাড়া বাগেরহাট-৪ আসনে মো. আমিনুল ইসলাম খানের (এনপিপি) মনোনয়নপত্রে ত্রুটির জন্য তা বাতিল করেন জেলা রিটার্নিং অফিসার।

চট্টগ্রাম
চট্টগ্রামে বিএনপির তিন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা। এরা হলেন- কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান গিয়াসউদ্দীন কাদের চৌধুরী, তার ছেলে সামির কাদের চৌধুরী এবং যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরী। জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে গিয়াস কাদের চৌধুরী ও আসলাম চৌধুরী ঋণ খেলাপি এবং সামির কাদের চৌধুরী দ-প্রাপ্ত হওয়ায় তাদের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা
সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) আসনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চার প্রার্থীসহ স্বতন্ত্র পাঁচজনের মনোনয়ন বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল। এরা হলেন- জেলা কৃষক লীগ সভাপতি বিশ্বজিৎ সাধু, জেলা আওয়ামী লীগের কৃষিবিষয়ক সম্পাদক এসএম মুজিবর রহমান, তালা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ নুরুল ইসলাম, ন্যাপের হায়দার আলী, আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক এমপি নজরুল ইসলাম। সাতক্ষীরা-২ আসনে জেএসডির প্রার্থী আফসার আলী এবং সাতক্ষীরা-৪ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী খলিলুর রহমানের মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং অফিসার।

কুষ্টিয়া
কুষ্টিয়ার ৪টি আসনে ৯ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল বলে ঘোষণা করা হয়েছে। রোববার জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন এ ঘোষণা দেন। এদের মধ্যে কুষ্টিয়া-১ (দৌলতপুর) আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন না থাকায় সাবেক এমপি আফাজ উদ্দিন আহমেদের মনোনয়ন পত্র বাতিল করা হয়। এ ছাড়া একই আসন থেকে ঋণ খেলাপীর দায়ে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের (বাদল গ্রুপ) প্রার্থী রেজাউল হক ও আয়কর রিটার্ন দাখিল না করায় মুসলীম লীগ প্রার্থী আব্দুল খালেক সরকারের মনোনয়ন পত্র বাতিল হয়েছে। অন্যদিকে কুষ্টিয়া-২ (মিরপুর-ভেড়ামারা) আসনে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা না দেয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী উপজেলা জামায়াতের আমির আবদুল গফুর ও বশির আহমেদের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়। এ ছাড়া কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালী-খোকসা) আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন না থাকায় বর্তমান এমপি আব্দুর রউফের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। একই আসন থেকে ঋণ খেলাপের দায়ে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির প্রার্থী মেহেদী হাসান, জাকের পার্টির তসির উদ্দিন ও সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ প্রার্থী রোকনুজ্জামান রোকনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

শেরপুর
শেরপুর-১ (সদর) আসনে বিএনপির তিন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। চারটি ব্যাংকের ঋণ খেলাপির দায়ে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. হযরত আলীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। এছাড়া জেলা যুবদল সভাপতি শফিকুল ইসলাম মাসুদ এবং সদর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ফজলুল কাদের মনোনয়নপত্রে বিএনপির প্রার্থী বলে উল্লেখ করলেও এর সঙ্গে দলীয় মনোনয়নের চিঠি সংযুক্ত না করায় তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

খাগড়াছড়ি
আদালতে দন্ডিত হওয়ায় খাগড়াছড়িতে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী ওয়াদুদ ভুইয়া, দলীয় মনোনয়ন না থাকায় আওয়ামী লীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থী ও দাখিলকৃত ভোটার তালিকায় অসঙ্গতির কারণে ইউপিডিএফ সমর্থিত দুই স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। মনোনয়ন বাতিল হওয়া ব্যক্তিরা হলেন- খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভুইয়া, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য যতীন্দ্র লাল ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সমীর দত্ত চাকমা, ইউপিডিএফের কেন্দ্রীয় নেতা সচিব চাকমা ও নতুন কুমার চাকমা।

নওগা
নওগাঁর ৬টি আসনে মোট নয়জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। এ ছাড়া একজন প্রার্থী তার মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে তারা হলেন- নওগাঁ-১ আসনের আবু হেনা মোস্তফা কামাল (এলডিপি/বিকল্পধারা), নওগাঁ-২ আসনে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ড. ইঞ্জিনিয়ার আখতারুল আলম (স্বতন্ত্র), আব্দুর রউফ মান্নান (বিকল্পধারা), মতিবুল ইসলাম (স্বতন্ত্র)। নওগাঁ-৪ আসনে আব্দুর রাকিব (স্বতন্ত্র) ও আফজাল হোসেন (স্বতন্ত্র)। নওগাঁ-৫ আসনে নওগাঁ পৌরসভা মেয়র আলহাজ্ব নজমুল হক সনি (বিএনপি) ও ইফতারুল আলম বকুল (জাপা) এবং নওগাঁ-৬ আসনে আনোয়ার হোসেন হেলাল (স্বতন্ত্র)। নওগাঁ পৌরসভা মেয়র আলহাজ্ব নজমুল হক সনি মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ না করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। ফলে তাকে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান তার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন।

নাটোর
মনোনয়নপত্রে স্বাক্ষর না থাকায় নাটোর-১ আসনে সাম্যবাদী দলের বীরেন্দ্রনাথ সাহা, নাটোর-৪ আসনে মুসলিম লীগের শান্তি রিবেরু, জাসদ (ইনু) দলের রনি পারভেজ, ঋণ খেলাপির কারণে জাতীয় পার্টি আলাউদ্দিন মেধা, জাল স্বাক্ষরের কারণে স্বতন্ত্র প্রার্থী দোলেয়ার হোসেন খান এবং নাটোর-২ আসনে মামলায় সাজা হওয়ার কারণে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এবং জেলা বিএনপির সভাপতি রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়।

শেরপুর
শেরপুর-১ (সদর) আসনে বিএনপির তিন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। রোববার দুপুরে মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের সময় নয় প্রার্থীর মধ্যে ছয়জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।
চারটি ব্যাংকের ঋণ খেলাপির দায়ে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. হযরত আলীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। এছাড়া জেলা যুবদল সভাপতি শফিকুল ইসলাম মাসুদ এবং সদর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ফজলুল কাদের মনোনয়নপত্রে বিএনপির প্রার্থী বলে উল্লেখ করলেও এর সঙ্গে দলীয় মনোনয়নের চিঠি সংযুক্ত না করায় তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

মেহেরপুর
মেহেরপুরের দুটি আসনে ১০ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। মেহেরপুর-১ আসনে ১৩ জন প্রার্থীর মধ্যে পাঁচজনের মনোনয়ন বাদ পড়েছে। যাদের মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে তারা হলেন- আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নান, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মিয়াজান আলী ও শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ইয়ারুল ইসলাম।

এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমানের এক শতাংশ ভোটারের স্বাক্ষর না থাকায় ও সমর্থনকারীর স্বাক্ষর মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় বিএনপি নেতা আব্দুর রহামানের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

পাশাপাশি মেহেরপুর-২ আসনে দলীয় মনোনয়ন না থাকায় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেক, আওয়ামী লীগ নেতা মখলেছুর রহমান মুকুল, গাংনীর সাবেক মেয়র আহম্মেদ আলী, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াসিম সাজ্জাদ লিখন, জেলা আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক নূরজাহান বেগমনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা।

রাজশাহী
রাজশাহীতে জামায়াতের দুই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। মনোনয়নপত্রের সাথে দাখিল করা ভোটার তালিকায় অসঙ্গতির কারণে তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক ও রিটানিং কর্মকর্তা এসএম আবদুল কাদের। মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যাওয়া জামায়াতের ওই দুই প্রার্থী হলেন- রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) আসনে দলের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির অধ্যাপক মুজিবুর রহমান এবং রাজশাহী-২ (পবা-মোহনপুর) আসনে জেলা কর্মপরিষদ সদস্য ও সাবেক কাটাখালি পৌর মেয়র অধ্যাপক মাজেদুর রহমান। নিবন্ধন হারানো বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর এই দুই নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন।

টাঙ্গাইল
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টাঙ্গাইল-৪ ও ৮ আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এমপি প্রার্থী বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। ঋণখেলাপি হওয়ায় তার মনোনয়ন বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

বরগুনা
বরগুনায় বিএনপি প্রার্থীসহ ৩ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে তারা হলেন- বরগুনা-১ আসনের বিএনপির প্রার্থী মো. মতিউর রহমান তালুকদার, বরগুনা-২ আসনের প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের প্রার্থী মো. সালাহ উদ্দিন ও এনপিপির প্রার্থী মো. মিজানুর রহমান।

নওগাঁ
নওগাঁর ৬টি আসনে মোট নয়জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। এ ছাড়া একজন প্রার্থী তার মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।
যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে তারা হলেন, নওগাঁ-১ আসনের আবু হেনা মোস্তফা কামাল (এলডিপি/বিকল্পধারা), নওগাঁ-২ আসনে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ড. ইঞ্জিনিয়ার আখতারুল আলম (স্বতন্ত্র), আব্দুর রউফ মান্নান (বিকল্পধারা), মতিবুল ইসলাম (স্বতন্ত্র)।
নওগাঁ-৪ আসনে আব্দুর রাকিব (স্বতন্ত্র) ও আফজাল হোসেন (স্বতন্ত্র)। নওগাঁ-৫ আসনে নওগাঁ পৌরসভা মেয়র আলহাজ্ব নজমুল হক সনি (বিএনপি) ও ইফতারুল আলম বকুল (জাপা) এবং নওগাঁ-৬ আসনে আনোয়ার হোসেন হেলাল (স্বতন্ত্র)।

ঝালকাঠি
ঝালকাঠির দুই আসনে সাতজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করেছে জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক। বাতিল করা হয়েছে ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মনিরুজ্জামান মনির, শাহ জামাল শামীম, ইয়াসমিন আক্তার পপি, মাওলানা দেলোয়ার হোসেন, নূরুল ইসলাম মুকুল মৃধা এবং মাওলানা ফয়েজুল হকের মনোনয়নপত্র। তাদের মধ্যে ইয়াসমিন আক্তার পপি ঋণ খেলাপি এবং অন্যরা মোট ভোটারের এক ভাগের স্বাক্ষর সঠিকভাবে আনতে ব্যর্থ হওয়ায় রিটার্নিং কর্মকর্তা তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন।
এ ছাড়া ঝালকাঠি-২ আসনে অনলাইনে মনোনয়নপত্র দাখিলকারী গণফোরাম প্রার্থী জাহান শাহ কবির পারভেজের মূল কাগজপত্র না পাওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়।

খাগড়াছড়ি
খাগড়াছড়িতে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী ওয়াদুদ ভুইয়া, দলীয় মনোনয়ন না থাকায় আওয়ামী লীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থী ও দাখিলকৃত ভোটার তালিকায় অসঙ্গতির কারণে ইউপিডিএফ সমর্থিত দুই স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। মনোনয়ন বাতিল হওয়া ব্যক্তিরা হলেন, খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভুইয়া, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য যতীন্দ্র লাল ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সমীর দত্ত চাকমা, ইউপিডিএফের কেন্দ্রীয় নেতা সচিব চাকমা ও নতুন কুমার চাকমা।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Close