৬ সপ্তাহব্যাপি বাজেট কনসালটেশন শুরু করেছে টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল

টাওয়ার হ্যামলেটস’ কাউন্সিল তার বাজেট প্রস্তাবণা তৈরী করেছে এবং এই প্রস্তাবিত বাজেট সম্পর্কে বাসিন্দা, ব্যবসায়ি সম্প্রদায় ও স্থানীয় বিভিন্ন গ্রুপের কাছ থেকে তাদের অভিমত জানতে শুরু করেছে বাজেট কনসালটেশন ‘ইওর বারা, ইওর ফিউচার’।

৬ সপ্তাহব্যাপি এই বাজেট কনসালটেশন ‘ইওর বারার, ইওর ফিউচার’ শীর্ষক গণপরামর্শ কার্যক্রম আগামী ১০ ডিসেম্বর সোমবার পর্যন্ত চলবে। কাউন্সিলের ২০১৯/২০ অর্থ বছরের কাউন্সিল ট্যাক্সের হার নির্ধারণ এবং তিন বছর মেয়াদি বাজেট তৈরীর প্রক্রিয়া অবহিত করা হবে।

২০১০ সালে কেন্দ্রিয় সরকারের আর্থিক সংকোচন নীতি চালু হওয়ার পর থেকে কাউন্সিলকে প্রদত্ত সরকারী অনুদান ৬৪ শতাংশ কর্তন করা হয়েছে, যার আর্থিক পরিমাণ হলো ১৪৮ মিলিয়ন পাউন্ড। আর্থিক এই সংকোচনকালে বারার অসহায় জনগোষ্টির জন্য প্রদত্ত সার্ভিসগুলোর পাশাপাশি ফ্রন্টলাইন সার্ভিসগুলো অব্যাহত রাখতে ১৭৬ মিলিয়ন পাউন্ড সাশ্রয় করতে কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে কাউন্সিলকে।

২০১৭ সালে তিন বছর মেয়াদি বাজেট চালুর মাধ্যমে কাউন্সিল সার্ভিসসমূহ অব্যাহত রাখার পদ্ধতি পরিবর্তন করে ৩৮ মিলিয়ন পাউন্ড সাশ্রয় করতে সক্ষম হয়। তদুপরি, সরকারের অব্যাহত কর্তন এবং সার্ভিসগুলোর ওপর ক্রমবর্ধমান চাপের কারণে কাউন্সিলকে আগামী ২০২২ সালের মধ্যে আরো ৪৪ মিলিয়ন পাউন্ড সাশ্রয় করতে হবে।

চলতি বছর কাউন্সিল পাবলিক সার্ভিসেস এ ব্যয় করছে ৩৪৩.৭ মিলিয়ন পাউন্ড, যারা প্রায় অর্ধেক খরচ হচ্ছে সোশ্যাল কেয়ারের আওতায় থাকা বাচ্চাদের সহায়তায়, ডিজেবল, মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা, গৃহহীন ও অসহায় প্রবীণ জনগোষ্টির দেখভাল করতে।

আর্থিক কর্তন অব্যাহত থাকা সত্বেও কাউন্সিল লেজার সেন্টার, আইডিয়া সেনটার ও লাইব্রেরী, চিলড্রেন্স সেন্টার ও ইয়ূথ ও কমিউনিটি হাবগুলোর মতো ফ্রন্টলাইন সার্ভিসগুলো অব্যাহতভাবে চালিয়ে যাচ্ছে।

টাওয়ার হ্যামলেটসের মেয়র জন বিগস বলেন, ২০১০ সালে রাষ্ট্রীয়ভাবে অর্থনৈতিক মিতব্যয়িতা কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক ১৪৮ মিলিয়ন পাউন্ড তহবিল কর্তন সত্বেও আমরা বারার অসহায় শিশু, প্রাপ্তবয়স্কদের সুরক্ষায় এবং ফ্রন্টলাইন সার্ভিসগুলোকে অব্যাহতভাবে চালিয়ে আমরা কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, বারার সকল আইডিয়া স্টোর ও লাইব্রেরী, লেজার সেন্টার ও চিলড্রেন্স সেন্টার চালু রাখতে আমরা সক্ষম হয়েছি। সারাদেশের তুলনায় অধিক সংখ্যক এফোর্ডেবল বা সামর্থাধীন ঘর আমরা নির্মান করেছি। বারায় দারিদ্রতা দূরীকরণে ৩০ মিলিয়ন পাউন্ডের তহবিল গঠন করেছি এবং আমাদের কমিউনিটিগুলোকে নিরাপত্তা দিতে অতিরিক্ত পুলিশ অফিসার নিয়োগেও তহবিলের যোগান দিয়েছি।

মেয়র বলেন, আমাদের পরবর্তী বাজেট তৈরীর চ্যালেঞ্জ সামনে রেখে আমরা এখন বারার বাসিন্দাদের অভিমত জানতে চাই। ‘ইওর বারার, ইওর ফিউচার’ শীর্ষক গণপরামর্শ কার্যক্রমে অংশ নিয়ে কোন ইস্যূগুলো আপনার কাছে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ, তা তুলে ধরার জন্য আমি বারার সকল বাসিন্দাকে অনুরোধ জানাচ্ছি।

বছরের পর বছর ধরে সরকারী অনুদান কর্তন, বাজেটের আকার ছোট হয়ে আসা এবং পক্ষান্তরে ক্রমবর্ধমান চাহিদার কারণে মান সম্মত সার্ভিসসমূহ ও অসহায় বাসিন্দাদের সহায়তামূলক সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে কাউন্সিলকে কিছু কিছু ক্ষেত্রে কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হয়। ২০২২ সাল নাগাদ বারার জনসংখ্যা ১০ শতাংশ বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষিতে এই চ্যালেঞ্জকে আরো কঠিন করে তুলছে।

কেবিনেট মেম্বার ফর রিসোর্সেস এন্ড দ্যা ভলান্টারি সেক্টর, কাউন্সিলর ক্যানডিডা রোনাল্ড বলেন, কোন সার্ভিসগুলো আপনার কাছে বিশেষ গুরুত্ব রাখে, সে সম্পর্কে আপনার অভিমত আমাদের কাছে তুলে ধরতেই এই কনসালটেশনের আয়োজন করা হয়েছে। আপনাদের কাছ থেকে যে ফিডব্যাক আমরা পাবো, তা আগামী তিন বছরের বাজেট পরিকল্পনা প্রণয়নে আমাদের সাহায্য করবে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Close