সিলেটে বস্তিতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৫

Saudi Fireসিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার লক্ষ্মণাবন্দে এক কলোনীতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে পাঁচ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন একজন। শনিবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে দুইজন নারী, দুইজন পুরুষ ও এক শিশু রয়েছেন। তারা লক্ষ্মনাবন্দ গ্রামের একটি কলোনীতে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন। খবর পেয়ে গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম, সিলেটের পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামানসহ এলাকার বিশিষ্টজনেরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। নিহত পাঁচজনকে ময়না তদন্তের জন্য ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। আহত একজনকে একই হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার বার্ণ হাসপাতালে আজ রোববার দুপুরে প্রেরণ করা হয়েছে বলে উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম নিশ্চিত করেন।
এলাকাবাসী ও ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, শনিবার রাত তিনটার দিকে বজ্রপাতে বাসার গ্যাস রাইজার বিস্ফোরিত হয়ে কলোনীতে আগুন ধরে যায়। আগুনে কলোনীর দুইটি রুম পুড়ে ভষ্মিভূত হয়। রুমের ভেতর আটকা পড়ে পাঁচজন ঘটনাস্থলেই মারা যান। ঘরের জানালা ভেংগে একজনকে উদ্ধার করে সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান এলাকাবাসী। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট রাত চারটার দিকে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
নিহতরা হলেন, মোগলবাজার থানার খালেরমুখ এলাকার ফজলু মিয়ার ৫ মাসের অন্ত:স্বত্তা স্ত্রী তাসনিমা বেগম (৩০) ও তার ২ বছরের শিশু সন্তান তাহমিদ, গোলাপগঞ্জের ফনাইরচক এলাকার মস্কন্দর আলীর ৬ মাসের অন্ত:স্বত্তা স্ত্রী শেবু বেগম, গোলাপগঞ্জের নোয়াইর চক এলাকার সেবুল মিয়া (১৭), জিয়া উদ্দিন (১৮)। এসময় গুরুতর আহত ফজলু মিয়াকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে তাকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে।
গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম জানান, সিলেটের পুলিশ সুপারের পক্ষ থেকে নগদ ১০ হাজার টাকা এবং উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে পাঁচজনের দাফন-কাফনের জন্য পঁচিশ হাজার টাকা এবং আহত একজনের চিকিৎসার জন্য আরো পঁচিশ হাজার টাকাসহ মোট পঁঞ্চাশ হাজার টাকা প্রদান করা হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে আরো সহযোগিতা পাওয়া যাবে বলে আশাবাদী তিনি।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close