টাওয়ার হ্যামলেটসে প্রতিবন্ধীদের বেনিফিটে আঘাত, মেয়রের উদ্বেগ

টাওয়ার হ্যামলেটসে শারীরিক প্রতিবন্ধী ৫৫% বাসিন্দা নতুন এসেসম্যান্ট পদ্ধতির কারনে ডিসএবল বেনিফিট হারাচ্ছেন। উল্লেখ্য যে, ২০১৩ সালে টোরী লিবডেম সরকার ডিসএবিলিটি লিভিং এলাউন্সের পরিবর্তে পারসনাল ইন্ডিপেন্ডেন্ট পেমেন্ট (পিআইপি) এলাউন্স চালু করে। সরকারেরই পরিসংখ্যানমতে এই এলাউন্স গ্রহনের জন্য নতুন করে এসেসম্যান্ট করার পর সারা দেশের ৪৬% শারিরীক প্রতিবন্ধী লোকের বেনিফিট কমেছে অথবা বন্ধ হয়ে গেছে। আর টাওয়ার হ্যামলেটসে এর হার হচ্চেছ ৫৫%। অর্থাৎ এখানে বেনিফিট গ্রহনকারী মোট ৪ হাজার ১শ ৩২ জন প্রতিবন্ধী বাসিন্দার মধ্যে ২ হাজার ২শ ৫৫ জনই একারনে ভুক্তভোগী হয়েছেন।

সরকার ২০১৩ সালে ডিসএবিলিটি লিভিং এলাউন্স তুলে দিয়ে পারসনাল ইন্ডিপেনডেন্ট পেমেন্ট (পিআইপি) চালু করে। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে শারীরিক অক্ষমতার কারনে যারা আয় করতে পারেন না তাদেরকে সহযোগিতা করা। সারা দেশের ৫.৫ মিলিয়ন দরিদ্র পরিবারে কেউ না কেউ শারীরিক প্রতিবন্ধী রয়েছেন। তাদের জন্য এই সহযোগিতাটি খুবই গুরুত্বপূর্ন। ২০১৩ সালে এটি চালুর পরপরই পিআইপি ব্যাপকভাবে বিতর্কিত হয়। দেখা যায় আপিলকারীদের মধ্যে ৭৫%ই বিজয়ী হয়েছেন।

টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস এব্যাপারে তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, এটা খুবই বিস্ময়কর যে, বারার ২ হাজার ৩শ শারীরিক প্রতিবন্ধী বাসিন্দার বেনিফিট কমেছে বা বন্ধ হয়ে গেছে। প্রকৃতপক্ষে পিআইপি এসেসম্যান্ট সিস্টেমটি পরিষ্কারভাবে ব্যর্থ হয়েছে। এটি একটি স্ট্রেসফুল প্রসেস এবং কারো পেমেন্ট কমে গেলে অথবা বন্ধ হয়ে গেলে এর পরিনতি হচ্চেছ ভয়াবহ। মেয়র আরো বলেন সরকারের উচিৎ এর এসেসম্যান্ট প্রসেস সঠিকভাবে পরিচালনার পাশাপাশি এর মানবিক দিকটি বিবেচনায় রাখা।

ডেপুটি মেয়র এবং কেবিনেট মেম্বার ফর এয়ার কোয়ালিটি এন্ড ট্যাকেলিং পোভার্টি কাউন্সিলার র‌্যাচেল ব্ল্যাক বলেন, পিআইপি থেকে ইউনিভার্সেল ক্রেডিট সিস্টেম চালু, সবই হয়েছে বর্তমান সরকারের আমলে। আর এসব সিস্টেম আমাদের বাসিন্দাদের অনেককেই আরেক দফা দারিদ্র্যতার মধ্যে ঠেলে দিয়েছে। অথচ সোশাল সিকিউরিটির মূল উদ্দেশ্যই হচ্ছে মানুষকে দারিদ্রতা থেকে বের করে আনা। সারা দেশের লেবার নিয়ন্ত্রিত কাউন্সিলগুলো কেন্দ্রীয় সরকারের বেনিফিট সিস্টেম পরিবর্তনের বিরুদ্ধে সোচ্চার রয়েছে। টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল ট্যাকেলিং পোভার্টি ফান্ডে ৬.৬ মিলিয়ন পাউন্ড বিনিয়োগ করেছে এবং ওয়েলফেয়ার সিস্টেম পরিবর্তনের বিরুদ্ধে ক্যাম্পেইন করে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close