টাওয়ার হ্যামলেটসে ইউনিভার্সেল ক্রেডিট: কেউ বেশী পায়, কেউ কম!

টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলে ইউনিভার্সেল ক্রেডিট প্রদানের ক্ষেত্রে মোট ৫শ ৩৯টি কেসে গলদ আবিষ্কৃত হয়েছে। একটি কেসে সংশ্লিষ্ট কাউন্সিল স্টাফ দেখতে পান যে, একজন বাসিন্দাকে ৮ হাজার পাউন্ড কম দেয়া হয়েছে যা সপ্তাহে প্রায় ১৫৪ পাউন্ড। আবার কোন কোন বাসিন্দাকে তার প্রাপ্যের চেয়েও বেশী পেমেন্ট দেয়া হয়েছে।

এমন একটি কেসে দেখা যায়, কাউন্সিল থেকে মোট ৭ বার নোটিশ দেয়ার পর একজন বাসিন্দার পেমেন্ট সংশোধন করা হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যে উক্ত বাসিন্দাকে ১৮ হাজার বেশী পেমেন্ট দিয়ে দেয়া হয়। এছাড়া আরেকটি কেসে আরেকটি পরিবারকে ২৫ হাজার বেশী দেয়া হয়েছে। অথচ এই গলদটি ডিপার্টমেন্ট ফর ওয়ার্ক এন্ড পেনশন এর নিজস্ব সিস্টেমেই ধরা পরার কথা ছিলো।

টাওয়ার হ্যামলেটসে যে ৫শ ৩৯টি কেসে গলদ আবিষ্কৃত হয়েছে এতে সংশিষ্ট বাসিন্দাদের মোট ১শ ৫০ হাজার পাউন্ড কম বেনিফিট দেয়া হয়েছে। কাউন্সিল স্টাফরা বর্তমানে সবগুলো কেসই ডিপার্টমেন্ট ফর ওয়ার্ক এন্ড পেনশন এর কাছে রিভিউর জন্য পাঠিয়েছেন। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে টাওয়ার হ্যামলেটস হোমসের প্রতি ৬ জন বাসিন্দার মধ্যে ১ জন বাসিন্দা সময়মতো ইউনিভার্সেল ক্রেডিট পাননি।

টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের বেনিফিট স্টাফরা জানিয়েছেন এসব গলদ ধরা পড়েছে তাদের নিজস্ব রুটিন চেকের মাধ্যমে। বাস্তবে এসব ধরা পড়ার কথা ছিলো ডিপার্টমেন্ট ফর ওয়ার্ক এন্ড পেনশনস এর কাছে। উপরন্তু কাউন্সিলের কাছে এসব গলদ ধরা পড়লেও নিয়মানুযায়ী তারা সরাসরি এসব কেইস নিয়ে কাজ করতে পারেনা। এজন্য বেনিফিট গ্রহীতাদের পারমিশনের প্রয়োজন হয়। অন্য এক রির্পোট মতে পুরো মডেলটি এমনভাবে সাজানো হয়েছে যাতে দর্শকের ভূমিকা ছাড়া কাউন্সিলের পক্ষে কিছুই করনীয় নেই।

এব্যাপারে টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ইউনিভার্সেল ক্রেডিটের ফাউন্ডেশন হেঁয়ালী এবং ভুলে ভরা। আপাতত একে টেকনিক্যাল ভুল বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা হলেও কারো কারো জন্য এটি জীবন মরন ইস্যু। যারা বেনিফিটের উপর নির্ভরশীল কম অর্থ পেলে তাদের জীবন যেমন কষ্টের হবে তেমনি কষ্ট হবে অতিরিক্ত অর্থ খরচের পর ফিরিয়ে দিতে। এক কথায় ইউনিভার্সেল ক্রেডিট সিস্টেম আমাদের বেনিফিট সিস্টেমের সাথে মোটেই মানানসই নয়। আর এজন্য কাউন্সিল স্টাফদের দ্বারা আবিষ্কৃত ভুলগুলো বিবেচনায় নিয়ে সরকারে উচিৎ হবে এই ব্যর্থ সিস্টেমকে বিবেচনা করা।

ডেপুটি মেয়র এবং ট্যাকেলিং পোভার্টি এন্ড ওয়েলফেয়ার রিফর্ম বিষয়ক কেবিনেট মেম্বার কাউন্সিলার র‌্যাচেল ব্ল্যাক বলেন, ইউনিভার্সেল ক্রেডিট একেবারে লেজেগোবরে অবস্থায়। যারা বেনিফিটের উপর নির্ভরশীল তাদের জন্য সত্যিকার অর্থেই এটি বেদনাদায়ক।

তিনি বলেন, কাউন্সিলের পক্ষ থেকে আমরা আমাদের সাধ্যমতো চেষ্টা চলিয়ে যাচ্ছি বাসিন্দাদের সহযোগিতা করার জন্য। আর এজন্য আমরা প্রতিষ্টা করেছি মাব্বি মিলিয়ন পাউন্ডের ট্যাকেলিং পোভার্টি ফান্ড। আমরা ১ মিলিয়ন পাউন্ড বরাদ্দ করেছি ইউনিভার্সেল সিস্টেমের কারনে ভুক্তভোগী বাসিন্দাদের পরামর্শ এবং সাপোর্ট বাবদ। আমরা চাইহ্ব পোভার্টি একশন গ্রুপের সাথেও কাজ করছি এর প্রতিক্রিয়া জানার জন্য।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Close