মহানবী (সা:) কে বিদ্রুপ করে কার্টুন

যুক্তরাষ্ট্রের প্রদর্শনীতে গোলাগুলি, নিহত ২

USAযুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে মহানবী হযরত মুহাম্মদকে (সা.) কে বিদ্রুপ করে আয়োজিত এক কার্টুন প্রদর্শনীর বাইরে গোলাগুলি ঘটনায় পুলিশের গুলিতে দুই অস্ত্রধারী নিহত হয়েছেন। গারল্যান্ডের ডালাসে কার্টিস কুলওয়েল সেন্টারের বাইরে স্থানীয় সময় রোববার সন্ধ্যা ৭টায় এ ঘটনা ঘটে।  ইসলাম বিদ্বেষী একটি চক্র এ প্রদর্শনীর আয়োজন করে। এতে মহানবী (সা:) কার্টুন আঁকার জন্য নগদ পুরষ্কারের ব্যবস্থাও করা হয়।
বিবিসির খবরে বলা হয়, মুসলমানদের নবী হযরত মুহাম্মদকে (সা.) নিয়ে আঁকা কার্টুনের এই প্রদর্শনীতে নেদারল্যান্ডসের ইসলামবিরোধী রাজনীতিবিদ গির্ট ওয়াইল্ডার্সও অংশ নিতে এসেছিলেন। গোলাগুলির ঘটনায় একজন পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন। হামলার পর সবাইকে সরিয়ে নিয়ে ওই প্রদর্শনী কেন্দ্র বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ।
নবীর (সা:) কার্টুন নিয়ে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে সামপ্রতিক হামলা ও হত্যাকান্ডের পর যুক্তরাষ্ট্রে এ ঘটনা ঘটল।
রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, দুই অস্ত্রধারী একটি গাড়িতে করে এসে প্রদর্শনী কেন্দ্রের বাইরে নামে এবং নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এক কর্মকর্তার দিকে গুলি শুরু করে।  এরপর গারল্যান্ড পুলিশ পাল্টা গুলি চালালে দুই বন্দুকধারী নিহত হয়।
অনলাইনে শহর কর্তৃপক্ষের দেওয়া এক বার্তায় জানানো হয়, এ ঘটনায় আহত পুলিশ সদস্য আশঙ্কামুক্ত।
তবে হামলাকারীদের পরিচয় বা তাদের উদ্দেশ্য সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো ধারণা দিতে পারেনি গারল্যান্ড পুলিশ।
ডালাসে এই প্রদর্শনীর আয়োজন করে আমেরিকান ফ্রিডম ডিফেন্স ইনিশিয়েটিভ নামের একটি সংগঠন, যারা নিউ ইয়র্কে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের কাছে ইসলামিক সেন্টার নির্মাণের বিরোধিতা করেছিল।
গারল্যান্ডের যে প্রদর্শনী কেন্দ্রে রোববারের কার্টুন প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়, সেখানেই গত জানুয়ারিতে স্থানীয় একটি ইসলামিক সেন্টারের জন্য তহবিল সংগ্রহের অনুষ্ঠান হয়েছিল। সে সময় এর বিরোধীরা কার্টিস কুলওয়েল সেন্টারের বাইরে বিক্ষোভও দেখিয়েছিল।
ইসলামী বিশ্বাস অনুযায়ী, নবীর ছবি আঁকা নিষিদ্ধ। ২০০৬ সালে ডেনমার্কের জাইল্যান্ডস -পোস্টেন নামের একটি পত্রিকা মুহাম্মদকে (স.) নিয়ে কার্টুন প্রকাশ করলে ব্যাপক বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।  চলতি মাসের জানুয়ারিতে প্যারিসে একই ধরনের কার্টুন প্রকাশ করায় ফরাসি বিদ্রুপ ম্যাগাজিন শার্লি এবদুতে হামলা চালিয়ে ১২ জনকে গুলি করে হত্যা করে দুই বন্দুকধারী।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন...

Close
Back to top button
Close